আমরা লাইভে English রবিবার, জুন ২৬, ২০২২

গুলি করে ১৪ জনকে হত্যার প্রতিবাদে উত্তপ্ত নাগাল্যান্ডে বন্‌ধ্‌

prothomalo-bangla_2021-12_254c253c-f834-485a-b92f-87d351cced30_Nagaland

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় নাগাল্যান্ড রাজ্যের পাঁচ জেলায় বৃহস্পতিবার ১০ ঘণ্টার বন্ধ্ পালিত হয়েছে। চলতি মাসের শুরুতে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে উত্তর নাগাল্যান্ডের মোন জেলায় ১৪ জন নিহত হওয়ার ঘটনার জেরে এ বন্ধ্ ডাকা হয়।

বন্ধ্ পালিত হওয়া পাঁচ জেলা হলো টুয়েনসাঙ্গ, লংলেং, কিপহিরে, নকলাক ও মোন। এর মধ্যে মোনে ভারতের নিরাপত্তা বাহিনীর প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছেন আন্দোলনকর্মীরা। বিষয়টি ভারতের জন্য কৌশলগত কারণে অস্বস্তিকর। কারণ, এসব জেলার পূর্বে রয়েছে মিয়ানমার আর উত্তরে অরুণাচল প্রদেশ।

বন্ধে উত্তর ও পূর্ব নাগাল্যান্ডের এ পাঁচ জেলার জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। রাস্তাঘাটে গাড়ির পাশাপাশি সরকারি–বেসরকারি অফিস বন্ধ ছিল। প্রায় ২০টি প্রধান নাগা উপজাতির অন্যতম কনিয়াক নাগাদের সংগঠন কনিয়াক ইউনিয়ন বর্তমানে সেনাবিরোধী আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছে। এর বাইরে অন্যান্য উপজাতির পক্ষ থেকেও আন্দোলনকে সমর্থন দেওয়া হচ্ছে।

কনিয়াক ইউনিয়ন এক বিবৃতিতে বলেছে, ভারতের নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে সম্পূর্ণ অসহযোগিতার পথে হাঁটবে তারা। সেনাবাহিনীর সঙ্গে সব সম্পর্ক ছেদ করার জন্য জমির মালিকদের নির্দেশ দিয়ে ইউনিয়ন আরও বলেছে, কনিয়াকদের কোনো গ্রাম পরিষদ, ছাত্র বা সমাজের কোনো অংশের মানুষ কোনোরকম সাহায্য বা অনুদান (সরকারের থেকে) নিতে পারবেন না। আপাতত নাগাল্যান্ডে সামাজিক অনুষ্ঠান হবে না এবং ভারতের জাতীয় উৎসব-অনুষ্ঠানও বর্জন করা হবে।

বিভিন্ন গোষ্ঠীকে এক ছাতার তলায় আনার কাজ করছে যে সংগঠন, তার নাম ইস্টার্ন নাগা পিপলস অর্গানাইজেশন (ইএনপিও)। অন্য বেশ কয়েকটি উপজাতীয় গোষ্ঠী, যেমন ফোম, চাঙ্গ, খিয়ামিয়াঙ্গান, সংটামও আন্দোলনে যোগ দিয়েছে। ইএনপিও দাবি করেছে, দোষী নিরাপত্তাকর্মীদের সাজা দিতে হবে এবং ভারতের সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে তাঁর বক্তব্য ফিরিয়ে নিতে হবে। অমিত শাহ সংসদে বলেছিলেন, সেনাবাহিনী আত্মরক্ষার্থে নাগা শ্রমিকদের ওপর গুলি চালিয়েছিল।

অন্যদিকে প্রধান নাগা রাজনৈতিক সংগঠন ন্যাশনাল সোশ্যালিস্ট কাউন্সিল অব নাগাল্যান্ডের মুইভা গোষ্ঠীর সঙ্গে কিছুদিন আগে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের শান্তি আলোচনা ভেস্তে গেছে। এ ঘটনার জেরেও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে নাগাল্যান্ড। উত্তর-পূর্বের সাতটি জেলার মধ্যে চারটিতে জারি রয়েছে বিশেষ সন্ত্রাস দমন আইন আর্মড ফোর্সেস (স্পেশাল পাওয়ারস) অ্যাক্ট বা আফসপা। এ আইনে মানবাধিকার সীমিত। এর বিরুদ্ধেও ফুঁসে উঠেছে নাগাল্যান্ড।

আফসপা প্রত্যাহারের দাবিতে শুক্রবার নাগা ছাত্র ও যুবদের সংগঠন নাগা স্টুডেন্টস ফেডারেশন মিছিল করার ঘোষণা দিয়েছে।